সৌদির শ্রম বাজারে সর্বনিম্ন মজুরি ৩ হাজার রিয়াল নির্ধারণ।

সৌদির শ্রম বাজারে সর্বনিম্ন মজুরি ৩ হাজার রিয়াল নির্ধারণ। সৌদি আরবের শ্রম বাজারে সর্বনিম্ন মজুরি নির্ধারণ করেছে দেশটির সরকার। সে দেশের মানবসম্পদ ও সামাজিক উন্নয়ন বি’ষয়ক মন্ত্রী জানিয়েছেন, দেশের শ্রম বাজারে সর্বনিম্ন মজুরি হবে ৩ হাজার থেকে ৪ হাজার সৌদি রিয়াল। যা বাংলাদেশি টাকায় হবে প্রায় ৬৮ হাজার থেকে ৮৭ হাজার টাকা।

শ্রমবাজারে সরকার নির্ধারিত এ বেতন কাঠামো দেশের সকল নিয়োগদাতা প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে কার্যকর হবে। ৪ হাজার রিয়ালের নিচে বেতন প্রা’প্তরা অর্ধকর্মী বা সৌদি ভাষায় নিতাকাত হিসেবে বিবেচিত হবেন। দেশটির মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র নাসির আল হাজানির উ’দ্ধৃতি দিয়ে এ খবর জানায় মক্কা নিউজ পেপার। তিনি জানান, এ বেতন কাঠামো প্রতিটি প্রাইভেট সেক্টরে নতুন নিয়োগকৃতদের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য হবে।

সৌদি সরকারের নতুন এ বিধানে প্রতিটি কর্মীর ক্ষেত্রে ইন্স্যুরেন্সও প্রযোজ্য হবে। আল হাজানি জানান, নতুন এ কাঠামোর ফলে কত সংখ্যক শ্রমিক উপকৃত ’হতে যাচ্ছেন, সে ধরনের পরিসংখ্যান নেই সরকারের কাছে। তবে এটি বের করতে কাজ করা হচ্ছে। বর্তমানে সৌদি আরবের শ্রম বাজারে কর্মর’ত আছে প্রায় ২৪ লাখ বাংলাদেশি।

নতুন এ নিয়মের ফলে অ’পেক্ষাকৃত কম বেতন পাওয়া শ্রমিকরা ন্যায্য মজুরি পাবে বলে। সৌদি আরবের শ্রম বাজারে সর্বনিম্ন মজুরি নির্ধারণ করেছে দেশটির সরকার। সে দেশের মানবসম্পদ ও সামাজিক উন্নয়ন বি’ষয়ক মন্ত্রী জানিয়েছেন, দেশের শ্রম বাজারে সর্বনিম্ন মজুরি হবে ৩ হাজার থেকে ৪ হাজার সৌদি রিয়াল।

যা বাংলাদেশি টাকায় হবে প্রায় ৬৮ হাজার থেকে ৮৭ হাজার টাকা। শ্রমবাজারে সরকার নির্ধারিত এ বেতন কাঠামো দেশের সকল নিয়োগদাতা প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে কার্যকর হবে। ৪ হাজার রিয়ালের নিচে বেতন প্রা’প্তরা অর্ধকর্মী বা সৌদি ভাষায় নিতাকাত হিসেবে বিবেচিত হবেন। দেশটির মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র নাসির আল হাজানির উ’দ্ধৃতি দিয়ে এ খবর জানায় মক্কা নিউজ পেপার। তিনি জানান, এ বেতন কাঠামো প্রতিটি

প্রাইভেট সেক্টরে নতুন নিয়োগকৃতদের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য হবে। সৌদি সরকারের নতুন এ বিধানে প্রতিটি কর্মীর ক্ষেত্রে ইন্স্যুরেন্সও প্রযোজ্য হবে। আল হাজানি জানান, নতুন এ কাঠামোর ফলে কত সংখ্যক শ্রমিক উপকৃত ’হতে যাচ্ছেন, সে ধরনের পরিসংখ্যান নেই সরকারের কাছে।

তবে এটি বের করতে কাজ করা হচ্ছে। বর্তমানে সৌদি আরবের শ্রম বাজারে কর্মর’ত আছে প্রায় ২৪ লাখ বাংলাদেশি। নতুন এ নিয়মের ফলে অ’পেক্ষাকৃত কম বেতন পাওয়া শ্রমিকরা ন্যায্য মজুরি পাবে বলে।