“তুমি শুধু বাড়িতে আসো” প্রবাসী সন্তানের জন্য মায়ের বুক ভাঙা কান্না।

“তুমি শুধু বাড়িতে আসো” প্রবাসী সন্তানের জন্য মায়ের বুক ভাঙা কান্না। বাবা, তুমি বিদেশ থেকে টাকা পাঠাও কিন্তু তোমা’র আদর কেনো পাঠাও’না। তোমা’র মত করে, আমাকে যে কেউ আদর করতে পারেনা। তোমা’র দেওয়া টাকায় সবই কিনতে পারি, কিন্তু তোমা’র আদরতো কিনতে পাওয়া যায়না বাবা।

ও’বাবা, তুমি কবে আসবে বাড়িতে, সেই যে আমা’র জন্য বড় গাড়ি কিনা’র কথা বলে পালিয়ে গেলে বিদেশে, কত দিন হয়ে গেলো এখনো কেনো আসোনা। জানো বাবা, ঘুরতে গিয়ে কত জনের সাথে হালিম আর ফুসকা খাই, কিন্তু তোমা’র সাথে বেড়াতে গিয়ে হালিম আর ফুসকা’তে যে মজাটা পেতাম, এখন আর সেই মজা পাইনা।

তোমা’র মত করে, আমা’র সব আবদারগু’লোও আর কেউ পূরন করেনা। তোমা’র মত করে কেউ আর বুকে নিয়ে, গল্প শুনিয়ে রাতে আমায় ঘু’ম পাড়ায় না। শেষ বিকেলে খেলা শেষে কেউ আর কোলে করে বাড়িও নিয়ে আসেনা। খাবার খেতে বসে কেউ আর মাছের মাথা’টা তার প্লেট থেকে আমা’র প্লেটে উঠিয়ে দেয়না। ঠান্ডার সমস্যা জেনেও খুব পছন্দের বলে কেউ আর তোমা’র মত করে লোকিয়ে লোকিয়ে আমাকে আইসক্রিম খাওয়াইনা।

আমা’র বড় গাড়ি লাগবেনা বাবা, তুমি শুধু বাড়িতে আসো, আমি আর কখনো তোমা’র কাছে কোন আবদার করবোনা। মা বলে তুমি নাকি আমা’দের চাওয়াগু’লো পূরন করতে বিদেশ গেছো। তুমি বিশ্বা’স করো বাবা, আমা’র আর কোন চাওয়া নেই, আমি শুধু রাতে তোমা’র বুকে ঘু’মাতে চাই। আমি শুধু খেলা শেষে, শেষ বিকেলে তোমা’র কোলে উঠে বাড়িতে আসতে চাই।

শুক্রবারে সকাল সকাল গোসল করিয়ে, কেউ আর আদর করে নতুন জামা পরিয়ে জুমা’র নামায পরতে নিয়ে যায়না। ঈদের মাঠে বড্ড বেশি মনে পরে তোমা’র কথা। মায়ের করা শাসনে মন খারাপ হলে, কেউ আর শান্তনা দিয়ে বুকে তুলে নেয়না, তোমা’র মত করে।

আমর’া প্রবাসীদের সন্তানরা, বাবা থাকতেও বাবা’হীন। বাবা’র আদর স্নেহ আর মায়া ভরা হাতটা, আমা’দের স্পর্শ করেনা বছরের পর বছর। এক যোগ পার হলেও অনেকের কা’টানো হয়না, বাবার সাথে একটি ঈদ। ভাল থাকুক প্রতিটি প্রবাসী বাবা, সুস্থ থাকুক সব সময়। – প্রবাসীর সন্তান সুমন সিকদার, সি’ঙ্গাপুর প্রবাসী। (সি’ঙ্গাপুরে আমর’া প্রবাসী বাংলাদেশী পেইজ থেকে নেওয়া) (প্রতীকী ছবি)